অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ ছিল বঙ্গবন্ধুর আজীবনের স্বপ্ন: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

0
59

সর্বশেষ আপডেট সেপ্টেম্বর ৫, ২০২১ | ইমরান

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান বলেছেন, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ ছিল বঙ্গবন্ধুর আজীবনের লালিত স্বপ্ন। সা¤প্রদায়িক স¤প্রীতির বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার আলোকে নানামূখী কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রী রোববার সকালে তাঁর অফিস কক্ষে “আমরাই পারি পারিবারিক নির্যাতন প্রতিরোধ জোট” এর প্রতিনিধি দলের সহিত সাক্ষাৎকালে এ সব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার ধর্মীয় মূল্যবোধ সম্পন্ন অসা¤প্রদায়িক সমাজ বিনির্মাণের লক্ষ্যে সকল ধর্মীয় স¤প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিসহ সংশ্লিস্টদের নিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নিয়মিত আন্তঃধর্মীয় সংলাপ, মত বিনিময় সভা ও আলোচনা সভার আয়োজন করে যাচ্ছে।

জাতির পিতার নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত এ দেশকে ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ, ভাষা নির্বিশেষে সকল মানুষের জন্য একটি নিরাপদ দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে আমরা নিরলস কাজ করে যাচ্ছি। দেশের সা¤প্রদায়িক স¤প্রীতি বিনষ্টকারীদের বিষয়ে আমাদের সরকার সজাগ রয়েছে। দেশে যাতে কোনভাবেই উগ্রবাদ, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ফিরে না আসে- এ বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে বলে প্রতিমন্ত্রী জানান।

তিনি জানান, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে নিয়মিতভাবে মসজিদের খতিব, ইমাম ও ধর্মীয় নেতৃবৃন্দকে প্রশিক্ষণ প্রদান করছে। তারা তাদের আলোচনা, বয়ান ও খুতবায় মানুষকে মাদক, বাল্য বিবাহ, নারীর প্রতি সহিংসতা, ভিন্ন ধর্মের প্রতি অবমাননাকর বক্তব্য প্রদান, সন্ত্রাস-জঙ্গীবাদ সহ নানাবিধ সামাজিক সমস্যার কুফল বিষয়ে জনগণকে সচেতন করে বক্তব্য রাখেন।

প্রতিমন্ত্রী আরও জানান, দেশে ইতোমধ্যে ৫৬০টির মধ্যে ৫০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র উদ্বোধন করা হয়েছে। অবশিষ্ট মসজিদ সমূহ চালু শীঘ্রই চালু হবে। এসব মসজিদের প্ল্যাটফরম ব্যবহার করে দেশের প্রান্তিক পর্যায়ের খতিব, ইমাম ও ধর্মীয় আলোচকদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদান করা গেলে অনেক সামাজিক সমস্য্রা সমাধান করা সম্ভব হবে।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অসা¤প্রদায়িক সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বাংলাদেশের সংবিধানে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’র মূলনীতি লিপিবদ্ধ করেছিলেন। ধর্ম নিরপেক্ষতার নীতি বাস্তবায়নে আমরা নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময় স্বার্থান্বেসী মহল বাংলাদেশের সা¤প্রদায়িক স¤প্রীতির সুন্দর পরিবেশকে নস্যাৎ করতে চায়। এ বিষয়ে আমাদের সকলকে সজাগ থাকতে হবে।

“আমরাই পারি পারিবারিক নির্যাতন প্রতিরোধ জোট” এর চেয়ারপারসন সুলতানা কামালের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলের অন্য সদস্যরা হলেন আমরাই পারি জোট এর কো চেয়ারম্যান এম বি আখতার, নির্বাহী সমন্বয়কারী জিনাত আরা হক, সদস্য রাবেয়া বেগম, প্রোগ্রাম কোঅর্ডিনেটর মুবিনুর রহমান, এডভোকেসি এন্ড ট্রেইনিং কো অর্ডিনেটর সুরাইয়া পারভীন, প্রোগ্রাম অফিসার মারজিয়া হাসান প্রভা প্রমুখ।

এসময় সংগঠনটির পক্ষ থেকে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বরাবর বেশ কিছু সুপারিশ তুলে ধরা হয়। সাক্ষাতকালে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ নূরুল ইসলাম, পিএইচডি উপস্থিত ছিলেন।

পূর্ববর্তী সংবাদদেশে করোনায় আরও ৭০ জনের মৃত্যু
পরবর্তী সংবাদআফগানিস্তান সফরে পাকিস্তানের গোয়েন্দা প্রধান

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন