কিশোরগঞ্জে আইনশৃংখলা রক্ষাবাহিনির তৎপরতায়  অপরাধ নিয়ন্ত্রণে

0
62

সর্বশেষ আপডেট জুলাই ২৭, ২০২১ | ইমরান

শাহ মোঃ সারওয়ার জাহান 
কিশোরগঞ্জ সদর ও পাকুন্দিয়া উপজেলায় পুলিশ বাহিনীর  তৎপরতায় অপরাধ  তূলনামূলক  কম ছিল। একান্ত সাক্ষাৎকারে এ তথ্য প্রদান করেছেন  কিশোরগঞ্জ  সদর ও পাকুন্দিয়া  থানা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার  মোঃ ইব্রাহিম হোসেন।
জানাগেছে  জেলার বৃহৎ এলাকা নিয়ে এ  দুটি  থানা  এলাকায় দুটি পৌরসভা ও একুশটি ইউনিয়ন রয়েছে।
সদর থানার অধিনে দুটি পুলিশ ফাঁড়ি পাকুন্দিয়া  থানার অধিনে একটি তদন্ত কেন্দ্র  রয়েছে।
জুন/২১ হতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত  মাদক,মারামারি,  নারী-শিশুনির্যাতন,চুরি- ছিনতাই বিষয়ে সদর থানায় ৪১ টি ও অপরদিকে পাকুন্দিয়া  থানায় রুজুকৃত মামলার সংখ্যা ২৮ টি।
করোনা মহামারী তে  মানুষের মধ্যে অপরাধ প্রবনতা অনেকাংশে কমে এসেছে।    অন্যান্য স্বাভাবিক  সময়ে  এ সংখ্যা ছিল বেশী । জেলা পুলিশ সুপারের সার্বিক নির্দেশনায় পরিকল্পিত ভাবে প্রতিটি ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রম অব্যাহত রাখার ফলশ্রুতিতে  এ সময়ে অপরাধ সংখ্যা কমেছে  বলে  মনে করেন এ পুলিশ কর্মকর্তা। এ প্রতিনিধির প্রশ্নের জবাবে ইব্রাহিম হোসেন  বলেন পৌরসভার ভিতরে ট্রাফিক সিষ্টেমে স্হানীয় যান চলাচল এখনো করছে ঠিক আছে কিন্তু  ভ্রাম্যমাণ  অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এ ছাড়াও পুরাতন স্টেডিয়ামের সামনে  পুলিশ তল্লাশী চৌকি বসিয়ে  গাড়ী, অটোরিকশা , মোটরসাইকেল , টমটম,  সিএনজি সাময়িক ভাবে আটক করে রাখা হচ্ছে। সতর্কীকরন করতে মাস্ক বিতরণ  করা হয়।  থানা পুলিশকে  সার্বক্ষণিক  তৎপর রাখার পাশাপাশি  গ্রাম পুলিশ কে ও এ দূর্যোগকালিন  সময়ে  জনগনের কাজে লাগানো হয়েছে। এ প্রতিনিধি স্হানীয় তামাকজাত দ্রব্য ও বিড়িতে নকল ব্যান্ডরোল ব্যবহারের ফলে সরকারের বিপুল পরিমান রাজস্ব হারানোর বিষয়টিতে প্রয়োজনীয়  পদক্ষেপ  গ্রহনের জন্য দৃষ্টি  আকর্ষণ করলে উপযুক্ত ব্যবস্হা নেয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যাক্ত করেন।
ভবিষ্যতে ও  এ সার্কেলের আইনশৃংখলা পরিস্থিতি  উন্নয়ন ঘটাতে ও স্থিতিশীল  রাখতে  প্রায়োগিক দিকের উপর বিভাগীয়,  সামাজিক  ও রাজনৈতিক  মহলের পরামর্শ  গ্রহন করে আরও এগিয়ে নেয়া হবে।
পূর্ববর্তী সংবাদ১৩ বছর বয়সে স্বর্ণ জিতে কিশোরীর ইতিহাস
পরবর্তী সংবাদহোসেনপুরে চলছে পাট মাড়াইয়ের ধুম

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন